7.3 C
New York
Saturday, March 2, 2024
spot_img

গ্রামীন ভারতে শিক্ষার ভয়াবহ অবস্থা

গ্রামীণ ভারতে শিক্ষা সবসময়ই একটি অনিশ্চিত অবস্থায় ছিল,

কিন্তু ক্রমবর্ধমান স্কুলের শিক্ষার যেই হাল তা ASER ২০২৩ সমীক্ষায় যা বের হয়ে এসেছে তা সত্যিই ভয়াবহ !!

-ভারতের ২৬ টি রাজ্যের প্রতিটি জেলায় স্থানীয় সংস্থাগুলির সাহায্য নিয়ে প্রায় ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক জরিপটি পরিচালনা করে।

বিভিন্ন ধরণের প্রতিষ্ঠান ASER-এর অংশীদার: কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, এনজিও, যুব গোষ্ঠী, মহিলা সংস্থা, স্বনির্ভর গোষ্ঠী এবং অন্যান্য

একটি ভয়াবহ গল্পঃ

ভারতীয় গ্রামীণ যুবক ১৪ থেকে ১৮ বছর বয়সের তরুন এবং যুবক যারা এক সময় দেশের মেরুদণ্ড হয়ে উঠবে

সবচেয়ে মৌলিক গণনা ৩ সংখ্যায় সাধারন ভাগ অংক করতেও ৫৬% শিক্ষাত্রী ভুল করেছে ।
যদি ভারতকে তার ‘ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ড’-কে পুঁজি করে নিতে হয় – তাহলে গ্রামীণ শিক্ষার এই সমস্যাটি সমাধান না করে কোনও উপায় নেই …..

বলছিলেন সাংবাদিক আকাশ ব্যানার্জি।

আমি একজন সহকারী প্রকৌশলী এবং আমাদের তরুণ নিয়োগ প্রাপ্তরা কাজে এসে মাঠের আয়তন এবং ক্ষেত্রফলের মধ্যে পার্থক্য করতে পারছে না দেখে আমি অবাক হয়েছি, এই প্রকৌশলীরা ভবিষ্যতে সেতু এবং রাস্তা নির্মাণ করবে?? বলছিলেন রিতেশ শর্মা ।

“ ভারতে বেকারত্ব দারিদ্র্য এবং নিরক্ষরতা সমস্যা নয়, রাজনৈতিক নেতাদের জন্য এটি একটি সুবিধা ।”

আগেই বলছিলাম ASER ২০২৩(ASER-হলো একটি গবেষনা প্রতিস্ঠান এর লক্ষ্য শিশুদের স্কুলের অবস্থা, প্রাথমিক পড়া এবং জেলা স্তরের শিক্ষার পরিসংখ্যান তৈরি করা)

ASER ভারতের ৫৭০ গ্রামের জরিপে বলছে এমনকি ক্লাস ২ জনের মধ্য একজন শিক্ষাত্রীও অংকের সবচেয়ে মৌলিক গণনা করতে পারছে না।…..

ভারতের জনসংখ্যা বিবেচনায় বার্ষিক বাজেটে শিক্ষার জন্য যে অংশ বরাদ্দ করা হয় তা ঠিক যেন একটি হাতিকে একমুঠো শস্য খাওয়ানোর মতো।
বলছিলেন শ্রীমতি রাভিনা ওড়িশা থেকে ।

আমাদের উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ ৪.৫ বছর পর শুরু হলো । ২৫/২৬ হাজার শূন্যপদ ৩টি ধাপে ৬/৭ মাসের মধ্যে পূর্ণ হয়েছে।

বাস্তব পরিস্থিতি হল আবেদন পরেছিল লাখে ১ জন প্রার্থীর জন্য ১পদ পাওয়া জন্য লড়াই করেছে।
এতটাই ছেকে নিয়গ পাওয়া শিক্ষকদের ছাত্রদেরই এই হাল যদি হয় তাহলে আমাদের শিক্ষার মান সম্পর্কে চিন্তা করুন!

আমাদের সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়গুলি গত কয়েক বছর ধরে ওড়িশায় আমাদের স্কুলের পরিকাঠামো দ্রুত গতিতে উন্নত হচ্ছে বা হয়েছে।

কিন্তু তার পরেও আমাদের স্কুলে মানসম্পন্ন শিক্ষক অনুপস্থিত…এখন প্রায় ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করার পর ইন্টারমিডিয়েট কলেজে যাচ্ছে ঠিকই কিন্তু মূল সমস্যা হল তাদের শিক্ষার মান এতটাই নিম্নমুখি চাকরী প্রতিযোগিতায় তারা টিকতে পারেনা আবার টিকলেও তা মানসম্পন্ননয়। এযেন রিতেস শর্মার ই কথারই প্রতিধ্বনী ।

অন্য দিকে আমার বাবা গত ৩৫ বছর ধরে গুজরাটের একটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে (সরকারি) শিক্ষক এবং অধ্যক্ষ হিসাবে কাজ করেছেন ।
তাঁর ঐ স্কুলে 8 জন শিক্ষক ছিলেন এবং গত ২০ বছরে ধীরে ধীরে সকলেই অবসর নিয়েছেন এবং সেখানে কেউ নেই।

এ পর্যন্ত এখনে শুধু অস্থায়ী শিক্ষক দিয়েই চলছে বিদ্যালয়টির। কারোই স্হায়ী নিয়গ হয়নি।

উপজাতীয় এলাকায় পরিস্থিতি আরও খারাপ।

আমি এমন বিদ্যালয় পরিদর্শন করেছি যেখানে পুরো বিদ্যালয়টি মাত্র১ জন শিক্ষকের উপর চলছে।

এখন আপনি কেবলমাত্র কল্পনা করতে পারেন যে ১ জন শিক্ষক একই সময়ে ৩টি ক্লাস পরিচালনা করছেন তখন শিশুরা কী শিক্ষা পাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক একজন বলছিলেন

কিন্তু আমরা এখন অমৃত কালের মধ্যে আছি তাই এখন ভগবান রাম মন্দির প্রতিষ্ঠার সাথে সাথে আমরা রাম রাজ্যে থাকব।

তাই কেন অধ্যয়ন করতে হবে ??
আমাদের রাম রাজ্যের স্বর্ণযুগকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা উচিত।
আমাদের পিএম(নরেন্দ্র মোদী) ভগবান বিষ্ণুর অবতার যিনি শিক্ষায় বিশ্বাস করেন না !!
কারণ তিনি নিজেই দুটি জাল ডিগ্রি পেয়েছেন তাই তিনি জানেন যে পাশ্চাত্য শিক্ষা মিথ্যা এবং আমাদের পুরানো গুরুকুলের দিনগুলিতে যাওয়া উচিত।
তিনি জানেন আকাশ মেঘ বা কুয়াশা থাকলে রাডার কাজকরেনা !
জয় শ্রী রাম

Mr. Aditya Ghosh বলছিলেন প্রাইমারি থেকে পিএইচডি এবং তার পরেও প্রতিটি স্তরে শিক্ষার মান ভারতে বিপজ্জনক।

আমি একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং আমি এটার পক্ষে প্রমাণ দিতে পারি। এমনকি পিএইচডিরাও একটি সঠিক বাক্য লিখতে পারে না, স্কুলের বাচ্চাদের কথা বাদ ই দিলাম ।।
এমএ, এমএসসি ডিগ্রিধারী ব্যক্তিদের সাধারণ জ্ঞান কতটুকু আছে?????

ছত্তিশগড় (উত্তর বস্তার) থেকে
আভিনাস মান্দাভী বলছিলেন আমাদের গ্রামীণ ভারতের বাস্তবতা, বিশেষ করে এখানে ‘বস্তর’-এ যেখানে আমি ‘দক্ষিণ’-এর ছাত্রদের মধ্যে স্পষ্ট পার্থক্য দেখতে পাচ্ছি। উত্তর বস্তারএবং আমার বড় বোন যিনি দক্ষিণ বস্তার অঞ্চলে ১৬ বছরের বেশি সময় ধরে একজন শিক্ষক, তিনি আমাকে দক্ষিণ বস্তরের শিক্ষার বাস্তবতা সম্পর্কে বলেছেন এবং কীভাবে এবং কেন সিস্টেমটি কেবল ভোটের জন্য সেখানে ব্যর্থ হয়েছে।

এটা কোন কাকতালীয় নয় যে প্রাথমিক শিক্ষার তুলনায় ভারতে উচ্চশিক্ষার সুবিধা অনেক ভালো।
শুধু আইআইটিকে আরও বড় করে তুলে ধরেন এটাকে সমস্যা নাই , তবে গ্রামের স্কুলগুলিতেও যথেষ্ট শিক্ষাদান সহায়তা দিন।
কিন্তু তারা এটা করবে না তার কারণ হল ছোটবেলা থেকেই একটি শিশুর পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ কমানো আমাদের রাজনীতিবিদদের এজেন্ডা।

রাজনৈতিক নেতারা তাদের রাজনীতিতে এতটাই ব্যস্ত যে তারা জানে না আমাদের দেশে শিক্ষার প্রকৃত স্তর কী।
খুব কম লোকই আছে যারা আসলে ভারতের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত।

এই ভাবে চলতে থাকলে ভারত কখনই সুপার পাওয়ারের কাছাকাছি হতে পারব না ।
যদি তাদের মৌলিক বিষয়গুলো ঠিক করতে না পারে , যার মধ্যে রয়েছে শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবা।

এ যেন একটি বড় জলাভূমিতে একটি আকাশচুম্বী ভবন নির্মাণের চেষ্টা !!

Facebook Comments Box
শহীদুল ইসলাম
শহীদুল ইসলামhttps://protiddhonii.com
একজন প্রবাসী বাংলাদেশী লেখক ও গবেষক। দীর্ঘদিন ইতালিতে বসবাস শেষে বর্তমানে বামিংহামে পরিবার সহ বসবাস করছেন। ঘুরতে ভালোবাসেন আর ইতিহাস ঐতিহ্যের প্রতি রয়েছে প্রবল আগ্রহ।

বিষয় ভিত্তিক পোস্ট

শহীদুল ইসলামspot_img

সাম্প্রতিক পোস্ট