5.9 C
New York
Friday, December 8, 2023
spot_img

বিশ্বের সবচেয়ে সুসজ্জিত মসজিদ

বিশ্বের সবচেয়ে সুসজ্জিত মসজিদ ইরানের শিরাজের নাসির আল-মুলক মসজিদ। সেই মসজিদে রংধনুর রঙ ভোরের আলোয় জ্বলজ্বল করে। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য মসজিদ রয়েছে। নকশার কারণে মুসলমানদের কিছু প্রার্থনা কক্ষের অনন্য এবং অসামান্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ইরানের শিরাজের নাসির আল-মুলক মসজিদের ক্ষেত্রে এমনটিই হয়েছে। বাইরে থেকে দেখতে কনভেন্টের মতো মনে হলেও ভেতরটা খুবই আকর্ষণীয়। এটি ইরানের অন্যতম সেরা মসজিদ। প্রতিদিন সকালে সূর্যের আলো আশেপাশের দেয়াল, খিলান এবং বর্শাগুলিতে রংধনুর সমস্ত রং প্রতিফলিত করে। জানালায় চকচকে শৈল্পিক দাগযুক্ত কাচ ব্যবহার করা হয়েছে। এর মাধ্যমেই সূর্যের আলো প্রবেশ করে এবং পুরো মসজিদের অভ্যন্তরকে প্রাণবন্ত রংধনুর রঙে আলোকিত করে। মসজিদটি অনেক রঙের এক মনোমুগ্ধকর সমাহার।

নাসির আল-মুলক মসজিদ বিভিন্ন নামে পরিচিত। এটি ‘পিঙ্ক মস্ক’ অর্থাৎ ‘পিঙ্ক মস্ক’ নামে বিখ্যাত। কারণ অভ্যন্তরে গোলাপি টাইলস বেশি ব্যবহার করা হয়েছে। পৃষ্ঠে হাজার হাজার আঁকা টাইলস দেখা যায়। অনেকে একে রেইনবো মসজিদ এবং ক্যালিডোস্কোপ মসজিদও বলে থাকেন। এর অনেক রূপ আছে। মেঝেতে একটি ফারসি কার্পেট রয়েছে। মসজিদের সামনের অংশ ভেষজ ও ফুলসহ নানা অলংকারে সজ্জিত। সামনের উঠানে একটি চতুষ্কোণ পুকুর রয়েছে। চারদিকে ফুলের সমারোহ। কাজার রাজবংশের অন্যতম প্রধান হাসান আলী নাসির আল-মুলকের নির্দেশে মসজিদটি নির্মিত হয়েছিল। এটি নির্মাণে প্রায় 12 বছর সময় লেগেছে বলে মনে করা হয় (17-18 বছর)। এর সাতটি কাঠের দরজা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ইসলামী শিল্পকলার ছাপ স্পষ্ট। মসজিদের দেয়ালে ফুলের নকশা এবং পশ্চিমী স্থাপত্য মসজিদের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। এ থেকে বোঝা যায় যে উনিশ শতকে ইরানে পশ্চিমা প্রভাব ব্যাপক ছিল। ইরানের স্থপতি মোহাম্মদ হাসান-ই-মেমার, মোহাম্মদ হোসেইনি শিরাজি এবং মোহাম্মদ রেজা কাশি-সাজ-ই-শিরাজি এই মসজিদটির নকশা করেছিলেন। এর মধ্যে মোহাম্মদ হাসান-ই-মেমার মসজিদের সামনে বিখ্যাত ইরাম গার্ডেন ছিল।

ইরানের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষদের পাশাপাশি বিদেশী পর্যটকরা সর্বদা মসজিদ প্রাঙ্গণে ছুটে আসছেন চমৎকার কারুকাজ দেখতে। ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পর্যটকরা এসে এর সৌন্দর্য উপভোগ করেন। খুব ভোরে মসজিদে সূর্যের আলো পড়লে তাদের ভিড় বেশি হয়। তারপর সবাই ছবি তোলার চেষ্টা করে। আপনি ইরানে যাওয়ার সময় গোলাপী মসজিদ না দেখলে সেখানে অপূর্ণতা থাকবে। ইসফাহান মেডিকেল ইউনিভার্সিটিতে ডাক্তারি পড়তে এসে আমার এই অভিজ্ঞতা হয়েছিল। আমি যখনই পড়াশুনার সুযোগ পাই, আমি ইরানের এমন দর্শনীয় স্থানগুলিতে যাই। নাসির আল-মুলক মসজিদটি ইরানের শিরাজে অবস্থিত, ফারস প্রদেশের রাজধানী, মহান কবি শেখ সাদি এবং হাফিজের জন্মস্থান। এখানে ফারসি সাহিত্যের এই দুই মহান ব্যক্তিত্বের সমাধি রয়েছে। আপনি মসজিদ ছাড়াও তাদের দেখতে পারেন। ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে যাত্রীরা সহজেই বিমান, বাস বা ট্রেনে শিরাজ পৌঁছাতে পারেন। ইসফাহান শহর থেকে বাসে পাঁচ ঘণ্টায় গোলাপী মসজিদে পৌঁছানো যায়। লিখেছেন: কামরুজ্জামান নাবিল, ইরান

Facebook Comments Box
প্রতিধ্বনি
প্রতিধ্বনিhttps://protiddhonii.com
প্রতিধ্বনি একটি অনলাইন ম্যাগাজিন। শিল্প,সাহিত্য,রাজনীতি,অর্থনীতি,ইতিহাস ঐতিহ্য সহ নানা বিষয়ে বিভিন্ন প্রজন্ম কী ভাবছে তা এখানে প্রকাশ করা হয়। নবীন প্রবীণ লেখকদের কাছে প্রতিধ্বনি একটি দারুণ প্ল্যাটফর্ম রুপে আবির্ভূত হয়েছে। সব বয়সী লেখক ও পাঠকদের জন্য নানা ভাবে প্রতিধ্বনি প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। অনেক প্রতিভাবান লেখক আড়ালেই থেকে যায় তাদের লেখা প্রকাশের প্ল্যাটফর্মের অভাবে। আমরা সেই সব প্রতিভাবান লেখকদের লেখা সবার সামনে তুলে ধরতে চাই। আমরা চাই ন্যায়সঙ্গত প্রতিটি বিষয় দ্বিধাহীনচিত্ত্বে তুলে ধরতে। আপনিও যদি একজন সাহসী কলম সৈনিক হয়ে থাকেন তবে আপনাকে স্বাগতম। প্রতিধ্বনিতে যুক্ত হয়ে আওয়াজ তুলুন।

বিষয় ভিত্তিক পোস্ট

উপদেষ্টাspot_img

সাম্প্রতিক পোস্ট