10.3 C
New York
Thursday, April 18, 2024
spot_img

তিন নেতার মাজার

রাজধানী ঢাকার দোয়েল চত্বরের কাছে তিন নেতার মাজার বাংলাদেশের স্থাপত্যের অন্যতম নিদর্শন। বাংলাদেশের তিন রাজনৈতিক নেতা শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী এবং খাজা নাজিমুদ্দিনের সমাধি এই তিন নেতার সমাধির উপর নির্মিত হয়েছে। এই তিন নেতার সমাধি মূলত একটি স্থাপত্য ভাস্কর্য। এর মাঝখানে তিনটি বেঙ্গল টাইগার পড়ে আছে। আমাদের তিন জাতীয় নেতা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও খাজা নাজিমুদ্দিন।

স্থপতি মাসুদ আহমেদ ও এসএ জহিরউদ্দিন ভাস্কর্যটির নকশা করেছেন। এটি ১৯৭৩ সালে স্থপতি মাসুদ আহমেদ এবং এসএ জহিরুদ্দিন তিনজন বিশিষ্ট নেতার স্মরণে নির্মাণ করেছিলেন। এটি একটি মিথ্যা তত্ত্ব। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দোয়েল চত্বরের উত্তর পাশে এই তিন জনপ্রিয় নেতার মাজার অবস্থিত। শিশু একাডেমি ও হাইকোর্ট ঘিরে রয়েছে এই তিন নেতার সমাধি। এই তিন নেতা বিংশ শতাব্দীর স্বাধীনতার পাশাপাশি বাংলার স্বাধীনতার রাজনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। এই তিন নেতাই ছিলেন তৎকালীন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, যিনি বাংলার বাঘ নামেও পরিচিত। ফজলুল হক ছিলেন একজন বিখ্যাত বাঙালি রাজনীতিবিদ। তিনি কলকাতার মেয়র এবং অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি ১৯৫৪ সালে পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এবং ১৯৫৫ সালে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নির্বাচিত হন। পরে তিনি পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। যুক্তফ্রন্ট গঠনের অন্যতম প্রধান নেতা তিনি।

ঢাকার নবাব পরিবারে জন্মগ্রহণকারী খাজা নাজিমুদ্দিন ছিলেন বাংলার অন্যতম প্রধান রাজনীতিবিদ। তিনি ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল হন এবং ১৯৫১ সালে পাকিস্তানের দ্বিতীয় প্রধানমন্ত্রী হন। ১৬ এপ্রিল ১৯৫৩ সালে, নাজিমুদ্দিনকে পদচ্যুত করা হয়। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন একজন বিখ্যাত বাঙালি রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী। ১৯২৪ সালে তিনি কলকাতা পৌরসভার ডেপুটি মেয়র হন এবং খাজা নাজিমুদ্দিনের মন্ত্রিসভায় তিনি শ্রম ও পৌর সরবরাহ মন্ত্রী ছিলেন। তিনি পূর্ব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিনি ১৯৪৮ সালে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র লীগ এবং ১৯৪৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠন করেন। তিনি এ কে ফজলুল হক এবং মাওলানা ভাসানীর সাথে যুক্তফ্রন্ট গঠন করেন। ১৯৫৮ সাল পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

এই ঐতিহাসিক মাজারটি যেমন আপনাকে বাংলার ইতিহাস নিয়ে আসবে, তেমনি এর সুন্দর পরিবেশ আপনাকে যান্ত্রিকতা থেকে কিছুক্ষণের জন্য দূরে রাখবে, শান্তি দেবে। আপনি স্বল্প খরচে আপনার পরিবারের সাথে এই জায়গাটি দেখতে পারেন। এটি ১৯৭৩ সালে স্থপতি মাসুদ আহমেদ এবং এসএ জহিরুদ্দিন তিনজন বিশিষ্ট নেতার স্মরণে নির্মাণ করেছিলেন। এটি একটি মিথ্যা তত্ত্ব।

Facebook Comments Box
প্রতিধ্বনি
প্রতিধ্বনিhttps://protiddhonii.com
প্রতিধ্বনি একটি অনলাইন ম্যাগাজিন। শিল্প,সাহিত্য,রাজনীতি,অর্থনীতি,ইতিহাস ঐতিহ্য সহ নানা বিষয়ে বিভিন্ন প্রজন্ম কী ভাবছে তা এখানে প্রকাশ করা হয়। নবীন প্রবীণ লেখকদের কাছে প্রতিধ্বনি একটি দারুণ প্ল্যাটফর্ম রুপে আবির্ভূত হয়েছে। সব বয়সী লেখক ও পাঠকদের জন্য নানা ভাবে প্রতিধ্বনি প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। অনেক প্রতিভাবান লেখক আড়ালেই থেকে যায় তাদের লেখা প্রকাশের প্ল্যাটফর্মের অভাবে। আমরা সেই সব প্রতিভাবান লেখকদের লেখা সবার সামনে তুলে ধরতে চাই। আমরা চাই ন্যায়সঙ্গত প্রতিটি বিষয় দ্বিধাহীনচিত্ত্বে তুলে ধরতে। আপনিও যদি একজন সাহসী কলম সৈনিক হয়ে থাকেন তবে আপনাকে স্বাগতম। প্রতিধ্বনিতে যুক্ত হয়ে আওয়াজ তুলুন।

বিষয় ভিত্তিক পোস্ট

শহীদুল ইসলামspot_img

সাম্প্রতিক পোস্ট