19.1 C
New York
Monday, May 27, 2024
spot_img

পাঁচ হাজার বছরের পুরাতন মানুষ তাঁরাও শরীর ট্যটু বা উল্কি আঁকত !

সময়টা ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৯১ সাল। মিস এরিকা এবং হেলমুট সোমন ,টিসার জোয়ালে সহ কয়েকজন প্রত্নতত্ববিদতারা কিছু মমি করা দেহ আবিষ্কার করেছিলেন। তার মধ্য একটি মমি ছিল একে বারেই অবিকল এবং অবিকৃত।এই দেহ গুলি এই পাওয়া যায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩২১০মিটার উপরে, পুন্টা ডি ফিনালে এবং সিমিলাউনের মধ্যে, ভ্যাল সেনালেসের হিমবাহের কেন্দ্রস্থলে। এটি আল্পস পর্বতমালা পারহওয়ার জন্য আমাদের পূর্বপুরুষরা সহস্রাব্দ ধরে এই রাস্তা ব্যবহার করেছিলেন। সিমিলাউনের মমি, ম্যান অফ সিমিলাউন, বা সাধারণ ওটজি ….. এই সমস্ত নামগুলি বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত মমিগুলির মধ্যে একটি। যা ৩৩০০ এবং ৩১০০ খ্রিস্টপূর্ব যুগের। সময়টা ছিল তাম্র যুগ। মমির শরীর পুরোপুরি সংরক্ষিত । এমন কি তার পোশাক আসাক এবং অন্যান সরঞ্জামও সম্পূর্ণ সংরক্ষিত।

এইটি , হিমবাহের অভ্যন্তরে এবং বিশেষ জলবায়ুর কারণে অনেকটা অবিকৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। মমির ব্যাক্তিটি প্রায় ৪৫ বছর বয়সী, ১.৬০মিটার লম্বা এবং প্রায় ৫০ কেজি ওজনের। তার চুল কালো ,বাদামী চোখ, তার শরীরে ছিল ৬১টি ট্যাটু পাওয়া গেছে। উল্কিগুলি শরীরের এমন কিছু অংশে পাওয়া যায় যেগুলি, তাকে অনেক কস্টদিয়েছ্ল আঁকার সময়, সেই সময় সম্ভবত কস্ট নিরাময়এর জন্য কোন চিকিৎসা ব্যাবস্থা ছিল। যেই সব সরঞ্জামগুলি পাওয়া গেছে মমির কাছে : কুড়াল, ছোরা, রিটাউচার (একটি ছোট পেন্সিল-আকৃতির সরঞ্জাম যা চকমকি কাজ করতে ব্যবহৃত হত), একটি ধনুক এবং তীর।

তার মৃত্যু যে হিংসাত্মক উপায়ে ঘটেছিল তা নিশ্চত।তার বুকে একটি চকমকি তীরের ডগা পাওয়া গেছে। সবকিছু বৈজ্ঞানিক পরিক্ষায় নির্ণীত হয়েছে। যেমন জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ হিউম্যান অ্যানাটমির অধ্যাপক ফ্রাঙ্ক রুথলি এবং ইটালির বোলজানো হাসপাতালের বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতায় ইতালীয়-সুইস গবেষকদের একটি দল ওটজির মৃত্যুর সঠিক কারণগুলি নির্ধারণ করতে সক্ষম হয়েছিল। গবেষকদের মতে, ক্ষতটি দেখে অনুমান করা যেতে পারে যে তিনি দ্রুত মারা গেছেন: “এই যুগের একটি শরীরে এই ধরনের ভাস্কুলার ক্ষতের প্রমাণ অনন্য,” বলেছেন অধ্যাপক রুথলি। ক্ষত শনাক্ত করার জন্য, মাল্টি-লেয়ার সিটি স্ক্যান ব্যবহার করা হয়েছিল, যা কিনা মৃত্যুর কারণ নির্ধারণের সহায়তা করেছে। বর্তমানে মমিটি বোলজানোর প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘরে সংরক্ষিত আছে।

তার মৃত্যু যে হিংসাত্মক উপায়ে ঘটেছিল তা নিশ্চত।তার বুকে একটি চকমকি তীরের ডগা পাওয়া গেছে। সবকিছু বৈজ্ঞানিক পরিক্ষায় নির্ণীত হয়েছে। যেমন জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ হিউম্যান অ্যানাটমির অধ্যাপক ফ্রাঙ্ক রুথলি এবং ইটালির বোলজানো হাসপাতালের বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতায় ইতালীয়-সুইস গবেষকদের একটি দল ওটজির মৃত্যুর সঠিক কারণগুলি নির্ধারণ করতে সক্ষম হয়েছিল। গবেষকদের মতে, ক্ষতটি দেখে অনুমান করা যেতে পারে যে তিনি দ্রুত মারা গেছেন: “এই যুগের একটি শরীরে এই ধরনের ভাস্কুলার ক্ষতের প্রমাণ অনন্য,” বলেছেন অধ্যাপক রুথলি। ক্ষত শনাক্ত করার জন্য, মাল্টি-লেয়ার সিটি স্ক্যান ব্যবহার করা হয়েছিল, যা কিনা মৃত্যুর কারণ নির্ধারণের সহায়তা করেছে। বর্তমানে মমিটি বোলজানোর প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘরে সংরক্ষিত আছে।

Facebook Comments Box
শহীদুল ইসলাম
শহীদুল ইসলামhttps://protiddhonii.com
একজন প্রবাসী বাংলাদেশী লেখক ও গবেষক। দীর্ঘদিন ইতালিতে বসবাস শেষে বর্তমানে বামিংহামে পরিবার সহ বসবাস করছেন। ঘুরতে ভালোবাসেন আর ইতিহাস ঐতিহ্যের প্রতি রয়েছে প্রবল আগ্রহ।

বিষয় ভিত্তিক পোস্ট

শহীদুল ইসলামspot_img

সাম্প্রতিক পোস্ট